fbpx

রিয়াল মাদ্রিদঃ ক্লাব অফ দ্যা সেঞ্চুরি

real madrid club of century

মুহূর্ত মিশে যায় মহাকালে….

স্মৃতি! বিস্মৃতি হয়ে যায়। 

মৃত্যু চিরকাল অমরত্ব পায়….

হৃদয়ের অনন্তে ভালোবাসায়। 

 

অমরত্ব প্রাপ্তি কিংবা লাভের কোন উদ্দেশ্য নয়, এটা আপনা-আপনি বিধেয়। 

অমরত্বের সাথে আত্মিক সম্পর্ক কিংবা যোগ টান কাটাছেঁড়ায় দেখা যায় এই বিশেষন সর্বজনীন ভাবে স্বীকৃত। আজ পর্যন্ত যারাই এই বিশেষনে বিশেষায়িত হয়েছেন তারা মহাকালের স্মৃতি পেরিয়ে হৃদয়ের অনন্য ভালোবাসায় সিক্ত হয়েছেন। 

এই অমরত্বের ধারায় কখনো ব্যক্তি মানুষ,গোষ্ঠী কিংবা জাতিও এসেছে আবার কখনো দেশ,রাষ্ট্রও এসেছে আবার কখনো কখনো জায়গা,স্থান কিংবা বর্নিত পাথেয় সবকিছুই জায়গা পেয়েছে। 

আজ বলবো অন্য এক অমরত্বের বর্ননা। 

রিয়াল মাদ্রিদ!  

নামটা শুনলেই শুভ্র সাদা জার্সির এক অবয়ব চোখে ভেসে উঠে। মনের কল্পনায় ছবি আকতে শুরু করে পছন্দের জাগতিক সবকিছু। 

সুদূর ইউরোপের স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে অবস্থিত বিংশ শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ ফুটবল ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ। সাম্রাজ্য কিংবা বর্নিল ইতহাসের সাথে যোগসাজশে সংযুক্ত স্পেন। একটা সময়ে বিশ্বকে শাসন করা স্পানিয়ার্ডরা স্পানিশ সাম্রাজ্যের বিস্তার করেছে দুনিয়াজুড়ে। বিবর্তনের ধারায় আজ স্পেনের নাম মুখে আসলে ঐসব গল্প কেউ তুলে না বরং প্রথমেই যে শব্দটা মুখের থেকে বের হয় সেটা রিয়াল মাদ্রিদ। 

ফেডারেশন অফ ইন্টারন্যাশনাল ফুটবল এসোসিয়েশন (ফিফা) বা ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা তারা ২০০০ সালে ফিফার বাৎসরিক অনুষ্ঠানে রেয়াল মাদ্রিদকে বিংশ শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ ক্লাবের তকমা দেন এবং সেইসাথে প্রদান করেন ট্রফিও। 

১১ই ডিসেম্বর ২০০০ সাল। 

ইতালির রোমে ফিফার বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। নতুন শতাব্দীর আগমনী বার্তা আর রেখে আসা স্মৃতি নিয়ে বিশেষ আলোকপাত করা হয় এই অনুষ্ঠানে। ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ফুটবল এসোসিয়েশন (উয়েফা) এই অনুষ্ঠানের অংশীদারত্বে আমন্ত্রণ জানান ইউরোপ সহ বিশ্ব ফুটবলের হেভিওয়েট সকল দেশের সেরা ক্লাবগুলোকে। তখনকার ফিফা প্রেসিডেন্ট সেপ ব্লাটার ঘোষনা দিলেন ইন্টারন্যাশনাল ক্লাব ফুটবলে সর্বোচ্চ অবদানের স্বীকৃতি দেয়া হবে শ্রেষ্ঠ ক্লাবকে। ফিফা স্বীকৃত ইন্টারন্যাশনাল ক্লাব ফুটবলের তখন দুইটা আয়োজন ছিলো একটা উইয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ আরেকটা ইন্টারকন্টিনেন্টাল কাপ। এর আগেও অনেক আয়োজন ছিলো কিন্তু সেগুলো কখনো পরিবর্তিত হয়েছে কিংবা বাতিল হয়েছে। 

স্বীকৃত এই আয়োজনের সর্বোচ্চ সাফল্য পাওয়া ক্লাব ছিলো রিয়াল মাদ্রিদ। 

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগের ৮ বারের শিরোপা জয়ী আর ইন্টারকন্টিনেন্টাল কাপের ২ বার শিরোপা জয়ী টিম ছিলো রিয়াল মাদ্রিদ। সর্বমোট ১০টা ফিফা স্বীকৃত ইন্টারন্যাশনাল ট্রফি জয়ী টিম ছিলো রিয়াল মাদ্রিদ। এত সাফল্য অন্য কোন টিমের ছিলো না। এছাড়াও সর্বোচ্চ অংশগ্রহণ, ম্যাচ জয়ের রেকর্ড সবকিছুতেই রিয়াল মাদ্রিদ স্পষ্ট ব্যবধানে এগিয়ে ছিলো। 

তবে মাদ্রিদের সাফল্য নিজের থেকে এসে ধরা দেয়নি। 

প্রতিযোগী ছিলো অনেক আর প্রতিযোগিতাও ছিলো অনেক কঠিন। ফিফার শতাব্দীর সেরা ক্লাব নির্বাচনের ভোটিং দেখলেই এই ব্যপারে ধারনা পাওয়া যায়। ফিফা স্বীকৃত প্রতিটা দেশের ফুটবল এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট,ফিফা ম্যাগাজিনের জার্নাল,নির্বাচিত জার্নালিস্টরা এই ভোট দেন। সর্বোচ্চ ৪৩.৩৫% ভোট পেয়ে বিজয়ী হয় স্পানিশ ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ। 

club of the century trophy
Club of the century trophy . Image: realmadrid.com

এছাড়াও ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ৯.৬৯% ভোট পেয়ে দ্বিতীয়, জার্মানির বায়ার্ন মিউনিখ ৮.১৮% ভোট পেয়ে তৃতীয় নির্বাচিত হয়৷ 

 

দশম পর্যন্ত তালিকা করলে সিরিয়াল অনুযায়ী বাকি ক্লাবগুলো হলোঃ

স্পেনের বার্সেলোনা ৫.৬১%। 

নেদারল্যান্ডসের আয়াক্স এবং ব্রাজিলের সান্তোস যৌথভাবে প্রত্যেকে ৫.১০%। 

ইতালির জুভেন্টাস ২.১০%। 

উরুগুয়ের পেনারল ২.০৪%। 

আর্জেন্টিনার রিভার প্লেট,ব্রাজিলের ফ্লামেঙ্গো এবং ইতালির এসি মিলান যৌথভাবে প্রত্যেকে ১.৫৩%। 

 

ইংল্যান্ডের লিভারপুলএবং আর্সেনাল,ব্রাজিলের বোতাফিগো,পর্তুগালের বেনফিকা,আর্জেন্টিনার বোকা জুনিয়র্স এবং ইন্ডিপেন্ডেন্ট, ইতালির ইন্টার মিলান যৌথভাবে প্রত্যেকে ১.০২ %। এবং অন্যান্য বাকি ক্লাবগুলো ৬.৬৩% ভোট পায়।

 

রিয়াল মাদ্রিদ ফুটবল ক্লাবের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ফ্লোরিন্টিনো পেরেজ এবং রিয়াল মাদ্রিদ ফুটবল ক্লাবের ইতিহাসে শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় কিংবদন্তী আলফ্রেড ডি ষ্টেফানোর হাতে এই পুরুষ্কার তুলে দেয়া হয়। ২০০৬-০৭ সিজনে শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ ক্লাবের শিরোপার আদলে নিজেদের জার্সিতে বিশেষ ব্যাচ ব্যবহার করে রিয়াল মাদ্রিদ। 

 

এখন পর্যন্ত এই আয়োজন এক বারই হয়েছে এবং রিয়াল মাদ্রিদই নির্বাচিত হয়েছে। 

আগামী ২১০০ সালে এই নির্বাচন আবার অনুষ্ঠিত হবে এবং সেখানেও ইন্টারন্যাশনাল ক্লাব ফুটবলে সর্বোচ্চ সাফল্য পাওয়া টিমকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হবে।